ঝিনাইদহের কপোতাক্ষ নদীর বেলে দোআঁশ মাটির সোনামুগ ডাল Leave a comment

গ্রীষ্মকালীন ফসল মুগ, ডালের রং অনেক টা স্বর্ণালি বর্ণ বলে একে অনেকেই সোনামুগ ডাল বলেন। বাংলাদেশের দক্ষিণ অঞ্চলে বেশি উৎপন্ন হয়ে থাকে। আমাদের মুগ ডাল মূলত, আদি দেশি বিনা জাতের মুগ ডাল, যা ঝিনাইদহ জেলার, মহেশপুর অঞ্চলের কপোতাক্ষ নদীর বেলে দোআঁশ জমিতে উৎপন্ন হয়েছে। আদি দেশি জাতের হওয়ায় স্বাদে, গন্ধে অতুলনীয়। পাতলা ও ঘন করে রান্না করে সাধারণ ব্যবহার হলেও, মুড়ি ঘণ্ট, ডাল ভাজা, বড়া ,পুলি পিঠায় মুগ ডালের ব্যবহার বহুদিনের। মুগডাল কয়েক রকমের হয়। #সোনামুগ তার মধ্যে সুস্বাদু ও জনপ্রিয়। চরাঞ্চলের সোনা মুগ উন্নত জাতের।

উপকারিতাঃ এতে প্রচুর পরিমাণে অ্যামাইনো এসিড ও উচ্চমাত্রার প্রোটিন রয়েছে যা শরীরে আমিষের ঘাটতি পূরণ করে। মুগডালের প্রধান কিছু স্বাস্থ্য উপকারিতা হলো- হজমে সহায়তা করে শরীরের পরিপাক নালির মধ্যে যে বিষাক্ত পদার্থ আছে তা বের করে দেয়, ফলে হজম শক্তি বাড়ে। এ ছাড়া এতে লেসিথিন নামে এমন এক ধরনের পুষ্টি উপাদান রয়েছে যা যকৃতে চর্বি জমাতে বাধা দেয়। অপর দিকে, মুগ ডালে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার থাকায় ক্ষুধা কম লাগে। এতে ভিটামিন বি২ নামে এমন একটি উপাদান রয়েছে যা ক্যান্সারের কোষগুলো ধ্বংস করতে সহায়তা করে। ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য ভালো হজমে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখায় ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য একটি চমৎকার খাবার হলো মুগ ডাল। এটি রক্তে শর্করার মাত্রাকে নিয়ন্ত্রণে রাখে এবং বিভিন্ন রোগের হাত থেকে বাঁচায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *